Blog

নতুন বইয়ের গন্ধে বিভোর থাকেন ‘গ্রন্থ-Man’

194 Views0 Comment

“একটি বই শুধুমাত্র একজন লেখক বা প্রকাশকের নয়, একজন ডিটিপি কর্মীর, একজন প্রুফ রিডারের, একজন মুদ্রাকরের, একজন বাঁধাইকর্মীর, একজন প্রচ্ছদ শিল্পীর, সর্বোপরি একজন পাঠকেরও। লেখা একজন লেখকের ব‍্যক্তিগত সৃষ্টি হতে পারে, কিন্তু বই সম্মিলিত সৃষ্টি।” এমনটাই মনে করেন অভিযান পাবলিশার্সের কর্ণধার প্রকাশক মারুফ হোসেন। প্রকাশনা সংস্থার জগতে অভিযান এখন অত‍্যন্ত পরিচিত একটি নাম। মিষ্টভাষী, উদ‍্যমী মারুফ হোসেনের বইকে ভালোবেসে একান্ত উদ‍্যোগের ফসল অভিযান পাবলিশার্স।

ক্রমশ ডিজিটাল হয়ে যাওয়া এই সময়ে যখন সমস্ত আর্ট ফর্মও ডিজিটালি দেখতে পছন্দ করছেন মানুষ তখন পাতা উল্টে বই পড়ার অবকাশ বা আবেগ কমে আসছে। যদিও ৪৪ তম কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলায় অগণিত মানুষ সমাগম এর বিপক্ষ মতই পোষন করে। এই যান্ত্রিক সময়ে দাঁড়িয়েও বহু মানুষ বই মেলায় আসছেন, বই কিনছেন। স্টলে স্টলে উপচে পড়ছে ভিড়। বইমেলা ধুলোতে মিশে যাচ্ছে হাজার হাজার বইপ্রেমী মুখেরা। তাহলে ই-বুক, পিডিএফ এর ঘনঘটার বাজারে বইমেলা বা পাতা উল্টে বই পড়া উঠে যাচ্ছে বলে যে ত্রাহি ত্রাহি রব উঠেছিল এ বছরের বইমেলা তা খানিকটা হলেও প্রশমিত করল। বইমেলা জুড়ে বিভিন্ন প্রকাশনী থেকে নতুন বই প্রকাশের হার চোখে পড়ার মত। পাঠকের চাহিদার তুলনায় অনেক ক্ষেত্রে যোগান কম। নতুন বই নিঃশেষিত হয়ে গেছে দ্রুত। পাঠকেরা বই চেয়ে না পেয়ে ফিরে গেছেন এমনটাও হয়েছে। এখন প্রশ্ন হল, এই যে সময়ে আমরা বাঁচছি যখন ফেসবুক স্ক্রলিং এ কেটে যায় অধিকাংশ সময়, মুঠোফোনে হাত দিলেই হাজার একটা ভিডিও, তখন এত বইপোকাদের উৎসাহ টিকিয়ে রাখছে কারা? নতুন নতুন বই প্রকাশ পাচ্ছে কাদের উদ‍্যোগে?

ঠিক এইখানেই আসে মারুফ হোসেনের নাম। মারুফ হোসেনের মত আরো কয়েকজনের নাম। মারুফ হোসেন আসলে এক অভিযানের নাম। এক ব‍্যতিক্রমীর নাম। বইপাড়ার বেশ কয়েকজন ব‍্যতিক্রমীর অন‍্যতম মুখ মারুফ হোসেন। ২০০৫ সালের গোড়ার দিকে মারুফ হোসেন বন্ধুদের সাথে কফি হাউসে বসে ঠিক করেন একটি প্রকাশনী সংস্থা তৈরী করবেন। সেই শুরু হয় অভিযানের যাত্রাপথ। প্রথম দিকে বারো জনের তালিকা তৈরী হয়। অভিযান এমন বারো জনকে বেছে নিতে চায় যাদের বই প্রকাশিত হলে পাঠকমহলে সমাদৃত হবে। ঠিক হয়, প্রথম বই হবে নবারুন ভট্টাচার্যের উপন‍্যাস ‘লুব্ধক’। তাই হয়। তবে এই যে শুরুর ছবি সেই শুরু কিন্তু এতটাও সহজ ছিল না। মারুফ নিজেই জানিয়েছেন, শুরুরও একটা শুরু রয়েছে।

প্রকাশক হওয়ার সুপ্ত স্বপ্ন নিয়ে মারুফ বাড়ি ছাড়েন মাত্র একুশ বছর বয়সে। এরপরের যাত্রাপথ শুধুই লড়াইয়ের। নানান পেশার সাথে যুক্ত হয়ে পড়েন। চলতে থাকে জীবন সংগ্রাম। প্রাইভেট টিউশনি থেকে দোকানে দোকানে ধূপ বিক্রি চলতে থাকে সবই। চোখে স্বপ্ন অথচ আর্থিক অস্বচ্ছলতা, জীবন তাঁকে নতুন পাঠ দিতে থাকে। সম্বল ছিল স্বপ্নটাই। সেই স্বপ্ন সফলতার বয়স এখন পনেরো। ২০০৫ – ২০২০ অভিযান পাবলিশার্স এখন পনেরো বছরের দামাল কিশোর। আটশোর কিছু বেশি বই রয়েছে অভিযানের। ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে অভিযানের পুস্তক তালিকা। রয়েছে প্রবন্ধ, উপন‍্যাস, কবিতা, গল্প, ভ্রমন কাহিনী সহ নানান স্বাদের দক্ষ লেখকদের বই। জনপ্রিয় গায়ক শিলাজিৎ মজুমদারের কবিতার বই ‘শব্দ শরীর’ প্রকাশিত হয়েছে অভিযান থেকেই। বাংলাদেশের থ্রিলার লেখক মহম্মদ নাজিমউদ্দিন এর ‘রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনো খেতে আসেননি’ এবং ‘রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনো আসেননি’ এর মতো জনপ্রিয়তম বইয়ের প্রকাশক মারুফ হোসেন। তালিকায় রয়েছে প্রচেত গুপ্তের মত এইসময়ের জনপ্রিয়তম লেখকের লেখা বইও। অভিযানের অভিযান চলছে। অভিযান এখন বই প্রকাশনার জগতে এক উজ্জ্বল নাম।দেড় দশকের অভিযান এগিয়ে চলেছে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে। আর এই ‘অভিযান’ নামক নৌকার হাল শক্ত করে ধরে আছেন ‘গ্রন্থম‍্যান’ মারুফ হোসেন। মারুফ হোসেন বিশ্বাস করেন, “প্রকাশক হওয়া যায় না, প্রকাশক জন্মায়। একজন লেখক যেমন হওয়া যায় না, একজন কবি যেমন হওয়া যায় না, কবি জন্মায়, লেখক জন্মায়, একজন প্রকাশকও জন্মায়।”

– মউলি রায়